আবিদা-সুলতানা
আবিদা সুলতানা
সফল উদ্যোক্তা ও প্রশিক্ষক
আবিদা সুলতানা সম্পর্কে

চাকরি করতেন একটি বেসরকারী ব্যাংকে। কিন্তু বিয়ে, সংসার এবং সন্তান সামলানো, সবকিছু মিলিয়ে চাকরি ছাড়তে হয় তাকে। ছোটবেলা থেকেই সৃষ্টিশীল কাজের প্রতি প্রচণ্ড ঝোঁক ছিলো আবিদা সুলতানার। সেই অনুপ্রেরণা  থেকেই একটি পিঠা উৎসবে অংশগ্রহণ করে প্রথম হন তিনি। সেই প্রাপ্তিটাকেই লাগিয়ে ভাবলেন ঘরে বসেই এমন কিছু করবেন যাতে তিনি তার পরিবারের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি নিজের উদ্যোগকে এগিয়ে নিতে পারেন। তখন মাত্র ৫ হাজার টাকা পুঁজি নিয়ে অনলাইন পেইজের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে ‘পিঠার আড্ডা’।

বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বাহারী রকমের পিঠা, হলুদের গহনা, শাড়ির ডিজাইন, ফুড কার্ভিং এসবের অর্ডার নিতেন অনলাইনে। নিজ উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন দিনাজপুরে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্ম। নিজের সৃষ্টিশীলতাকে কাজে লাগালেন। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের যা কাজ সব নিজেই করেছেন। নিজের বিয়ের গায়ে হলুদে প্রথম ফল কেটে কার্ভিংয়ে তার কাজের যাএা শুরু করেন। সেই অনুপ্রেরণায় দিনাজপুরে একটি দোকান ভাড়া নিয়ে ‘ব্রাইডাল ক্রিয়েশন ওয়েডিং ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এন্ড ক্যাটারিং সার্ভিস’এর কার্যক্রম শুরু করেন তিনি। কাজগুলো দেখে সকলেই তার প্রশংসা করেন। স্বীকৃতি স্বরুপ ২০১৩-১৪ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পিঠা উৎসবে পেয়েছেন ঢাবিশ্বাস পুরষ্কার।

নানা রকমের মুখরোচক খাবারের পাশাপাশি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের কাজ দিয়ে অল্প সময়েই ব্যাপক সাড়া পান তিনি। প্রতিনিয়ত আসতে থাকে অর্ডার, দ্রুতই বাড়তে থাকলো কাজের পরিধি। হোটেল রেডিসনের হেড কিচেন আর্টিস্ট মুজিবুল হকের কাছ থেকে ফুড কার্ভিং এর উপর ১ সপ্তাহের ট্রেনিং গ্রহণ করেন। তিনি দিনাজপুরে ‘স্বপ্ন চূড়া মহিলা উন্নয়ন সংস্থা’ নামে একটি ট্রেনিং সেন্টারের কার্যক্রম শুরু করেন। ট্রেনিং সেন্টারটি ২০১৩ সালে বাংলাদেশ সরকারের মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর থেকে রেজিস্ট্রেশন করা হয়। সেখান থেকে অনেক নারীরা বিভিন্ন স্কিল ট্রেনিং নিয়ে নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে অনেক ভালো কাজ করছেন।

বর্তামানে স্থায়ীভাবে ১০ জন এবং অস্থায়ী ১৫ জন কর্মী কাজ করছেন উদ্যোক্তার প্রতিষ্ঠানে। কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে নিজের উদ্যোগকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন উদ্যোক্তা। বাংলাদেশের ফুড কার্ভিং জগতে একটি স্বনামধন্য নাম আবিদা সুলতানা। বর্তমানে তার ক্লায়েন্ট সংখ্যা ১০০ এর উপর, পাশাপাশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছেন এবং ওয়েডিং ক্রিয়েশন এবং ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর পাশাপাশি ওয়েডিং গিফট এর একটি কারখানা দিয়েছেন।

আবিদা সুলতানা বাংলাদেশের ফ্রুট কার্ভিং এর একজন অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখ, ফ্রুট কার্ভিং বিষয়টি বাংলাদেশে এখনও নতুন হলেও এর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে ফ্রুট কার্ভিং এর একটি পরিবেশনা পুরো অনুষ্ঠানে নিয়ে আসে একটি ভিন্ন মাত্রা। সে দিক থেকে বিবেচনা করে ফ্রুট কার্ভিং এর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে।

আপনি ও চাইলে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেন একজন ফ্রুট কার্ভিং আর্টিস্ট হিসাবে। তার জন্য প্রয়োজন যথাযথ প্রশিক্ষণ। আর সে আয়োজনে আপনার পাশে আছে ঐক্য এসএমই ডিজিটাল ইন্সটিটিউট। দেখুন , শিখুন বাসায় বসেই দূর-শিক্ষণের মাধ্যেমে প্রশিক্ষণ নিন আমাদের অভিজ্ঞ প্রশিক্ষক এর কাছ থেকে। ট্রেনিংয়ের বিষয় হিসাবে ফ্রুট কার্ভিং বেছে নিয়ে হয়ে উঠতে পারেন একজন ফ্রুট কার্ভিং আর্টিস্ট, উদ্যোক্তা।